শিরোনাম

দীর্ঘ ১৮ মাস পর ঘোড়াশাল ও পলাশ ইউরিয়া সারকারখানায় গ্যাস সংযোগ।  

নরসিংদী প্রতিনিধি: দীর্ঘ প্রায় ১৮ মাস যাবত বন্ধ থাকার পর নরসিংদীর ঘোড়াশাল ও পলাশ সারকারখানায় এ মাসের ১৪ তারিখে গ্যাস সংযোগ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। গ্যাস সংযোগের সাথে সাথেই কারখানা দুটি উৎপাদন প্রকৃয়াকরণ শুরু করে। এই প্রকৃয়াকরণের পর গত সোমবার থেকে পলাশ ইউরিয়া কারখানায় উৎপাদন শুরু হয়। কিন্তু গ্যাসের চাপ কম থাকার কারণে ঘোড়াশাল ইউরিয়া সারকারখানায় উৎপাদন এখনো শুরু হয়নি। তবে কর্তৃপক্ষ বলছেন অচিরেই গ্যাসের চাপ বাড়ার সাথে সাথে উৎপাদন শুরু হবে।

প্রতি বছর মার্চ-এপ্রিল মাস আসলেই শ্রমিকদের মধ্যে আতঙ্ক আর হতাশা শুরু হয়। কখন কারখানার গ্যাস বন্ধ হয়ে যায়, আর কখনই বা কারখানাটিও বন্ধ হয়ে যাবে এবং বন্ধ হওয়া কারখানা আবার কবে নাগাদ উৎপাদনে আসে। কারণ কারখানাটির উৎপাদন বন্ধ থাকলে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয় শ্রমিক কর্মচারীরা। প্রতি বছেরর মতো গত ২০১৬ সালেও ৯মাস বন্ধ থাকার পর কারখানা দুটি ডিসেম্বর মাসে উৎপাদনে আসে। উৎপাদন শুরু হওয়ার পর মাত্র ৪ মাসের মাথায় আবারো ২০১৭ সালের ১৭ এপ্রিল বন্ধ হয়ে যায় কারখানা দুটির উৎপাদন। বন্ধ থাকার পর শ্রমিকদের বিভিন্ন আন্দোলনের পর অবশেষে এ মাসের ১৪ তারিখে কারখানা দুটিতে গ্যাস সংযোগ দেয় কর্তৃপক্ষ।

পলাশ সারখানায় দীর্ঘ ১৮ মাস পর গ্যাস সংযোগের পর উৎপাদন শুরু হওয়ায় খুশি সাধারণ শ্রমিকরাও। তাই তারা কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান।

গ্রীষ্মকালীন নিরবিচ্ছন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের লক্ষ্যে সরকারের সিদ্ধান্ত মোতাবেক গত বছরের ১৭ এপ্রিল কারখানা দুটিতে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ করে দেয় তিতাস কর্তৃপক্ষ। ফলে কারখানা দুটির উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়। ঘোড়াশাল ইউরিয়া সারকারখানা থেকে দৈনিক প্রায় ১ হাজার মেট্রিক টন এবং পলাশ ইউরিয়া সরকার খানা থেকে দৈনিক ৩০০ মেট্রিক টন ইউরিয়া উৎপাদন হতো।

(Visited 35 times, 1 visits today)

About The Author

শরীফ ইকবাল রাসেল নরসিংদী প্রতিনিধি, ঢাকা বিভাগ, বাংলাদেশ

এই বিভাগের আরও সংবাদ

LEAVE YOUR COMMENT

Your email address will not be published. Required fields are marked *


অ্যাবাউটবিজ্ঞাপনযোগাযোগ শর্ত ও নিয়মাবলী