আন্তর্জাতিক সংবাদ: সম্পর্কের টানাপড়েনের মধ্যে ওয়াশিংটনে পৌঁছে নতুন আশার কথা শুনিয়েছেন চীনের নতুন রাষ্ট্রদূত শিন গ্যাং। কোভিড মোকাবেলায় যুক্তরাষ্ট্রের সাফল্য কামনার পাশাপাশি দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক উন্নয়নের দারুণ সম্ভাবনাও আছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

চীনা শীর্ষ কূটনীতিকদের সঙ্গে তিয়ানজিনে মার্কিন উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী উউন্ডি শেরম্যানের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকের কয়েকদিন পরই ওয়াশিংটনে পৌঁছান শিন গ্যাং। সম্পর্কের উন্নয়নে দুই পক্ষকেই যে ছাড় দিতে হবে, এমন ইঙ্গিত এসেছে তিয়ানজিনের বৈঠক থেকে। ৫৫ বছর বয়সী শিনের ঝুলিতে ইউরোপ নিয়ে কাজ করার সাম্প্রতিক অভিজ্ঞতাও রয়েছে।

সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, “আমি গভীরভাবে বিশ্বাস করি, চীন-যুক্তরাষ্ট্র সম্পর্কের খোলা দরজা বন্ধ হতে পারে না, হওয়া উচিতও নয়। দুই দেশের সম্পর্ক এখন একটা জটিল বাঁকে এসে উপস্থিত হয়েছে, যেখানে অনেক সমস্যা আর বাধার সঙ্গে দারুণ সুযোগ ও সম্ভাবনাও আছে।”

সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের সময় বেইজিং-ওয়াশিংটন সম্পর্কের মারাত্মক অবনতি ঘটে। জো বাইডেন প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব নেওয়ার পর চীনা কর্মকর্তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা অরোপের মাধ্যমে সেই চাপ অব্যাহত রেখেছেন। যুক্তরাষ্ট্র যে বিশ্বকে নেতৃত্ব দেওয়ার জায়গাটি ছাড়তে রাজি নয়, সেটাও বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি।

এদিকে গত অক্টোবর থেকে চীনে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতের পদটি ফাঁক পড়ে আছে। বাইডেন এখনও সেখানে রাষ্ট্রদূত নিয়োগ দেননি। তবে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতিতে সাবেক নেটো রাষ্ট্রদূত নিকোলাস বার্নস এই পদের জন্য এগিয়ে রয়েছেন।

সূত্র: রয়টার্স/বিডি নিউজ ২৪.কম

আরও সংবাদ

Write a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *