আন্তর্জাতিক সংবাদ: আবহাওয়া পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় নেয়া হচ্ছে নানা উদ্যোগ। কার্বন নিঃসরণ বন্ধে লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে উন্নত দেশগুলো। প্রতিশ্রুতি এসেছে বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে। তহবিল সরবরাহ করা হচ্ছে উন্নয়নশীল দেশগুলোকেও। তবু প্যারিস চুক্তির লক্ষ্য পূরণে অনেক পিছিয়ে আছে বিশ্ব।

জাতিসংঘের নতুন একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিশ্ব একটি উষ্ণ ভবিষ্যতের বিপর্যয়কর পথে চলছে। গ্রিনহাউজ গ্যাস নিঃসরণ কমাতে উচ্চাভিলাষী প্রতিশ্রুতি ছাড়া এ বিপর্যয় এড়ানো সম্ভব নয় বলে সতর্ক করেছেন সংস্থাটির প্রধান।

এপির খবরে বলা হয়েছে, জাতিসংঘের প্রতিবেদনে প্যারিস আবহাওয়া চুক্তি স্বাক্ষরকারীদের গত ৩০ জুলাই পর্যন্ত জমা দেয়া সব জাতীয় প্রতিশ্রুতি পর্যালোচনা করা হয়েছে। এক্ষেত্রে উঠে এসেছে, ২০৩০ সালের মধ্যে দেশগুলোর কার্বন নিঃসরণ ২০১০ সালের তুলনায় প্রায় ১৬ শতাংশ বাড়বে। বিজ্ঞানীরা বলছেন, বিশ্বকে দ্রুত কার্বন নিঃসরণ কমিয়ে আনা শুরু করতে হবে। এছাড়া বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি ১ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নামিয়ে আনার প্যারিস চুক্তির উচ্চাভিলাষী লক্ষ্য পূরণ করতে হলে ২০৫০ সালের মধ্যে বায়ুমণ্ডলে আর কোনো কার্বন যোগ করা যাবে না।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রাক-শিল্প বিপ্লবের সময় থেকে বিশ্ব এরই মধ্যে ১ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস উষ্ণ হয়েছে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের আয়োজনে অনুষ্ঠিত প্রধান অর্থনীতির নেতাদের একটি ভার্চুয়াল বৈঠকে জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস বলেন, চলতি শতকের মাঝামাঝিতে কার্বন নিঃসরণের লক্ষ্য পূরণে ২০৩০ সালের মধ্যে নিঃসরণ ৪৫ শতাংশ কমিয়ে আনা প্রয়োজন। যেখানে বিশ্ব ২ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস উষ্ণ হওয়ার পথে রয়েছে।

সুত্র: ইনকিলাব/বিবিসি

আরও সংবাদ

Write a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *